• মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৩:০৯ অপরাহ্ন
  • English Version
Notice :
***শর্ত সাপেক্ষে সাংবাদিক নিয়োগ দিচ্ছে সংবাদ২৪**আগ্রহীরা সিভি পাঠান এই ইমেইলেঃinfo@shangbad24.com

সাড়ে নয় হাজার টাকায় বিক্রি হলো লাখ টাকার গাছ

সংবাদ২৪ ডেস্ক
আপডেট রবিবার, ৭ জুন, ২০২০

মাত্র সাড়ে নয় হাজার টাকায় বিক্রি হলো লাখ টাকার সরকারি পাকুর গাছ। প্রায় দের দু’শ বছরের পুরোনো ওই গাছটি টেন্ডারে মাধ্যমে এতো কম মূল্যে বিক্রি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে নানা মহলে।

বগুড়ার শিবগঞ্জের মোকামতলা ইউনিয়নের আমজানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাচীন এ পাকুর গাছটি শনিবার স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ীর দ্বারা কাটা শুরু হয়েছে।

গত ২৬ মে ঘূর্ণিঝড়ে উপড়ে পড়ার সাত দিন পর টেন্ডারের মাধ্যমে শতবর্ষী ওই গাছ কিনে নেন মোকামতলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ফজলুর রহমান দুলা সরদারের ছেলে আহসান হাবিব।

এত বিশাল আকারের এ গাছটির মূল্য কত হতে পারে তা নিয়ে অনুসন্ধান চালিয়েছে মানবজমিন। অনুসন্ধানে গাছটির মূল্য ৬০ থেকে ১ লক্ষ টাকা হবে এমন বক্তব্য পাওয়া গেছে সাধারন মানুষের মুখ থেকে। ব্যবসায়ীরাও দিয়েছেন একই রকম বক্তব্য।

এ ব্যাপারে ওই এলাকার গাছ ব্যবসায়ী আব্দুল হান্নান বলেন, গাছটির মূল্য আনুমানিক ৮০ থেকে ১ লক্ষ টাকা হবে। খর পাকুরের এই গাছটি অনেক পুরাতন হওয়ায় এর কাঠও অনেক ভালো।

প্রায় একই রকম বক্তব্য দিয়েছেন,কাঠ ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নান ও সাজু।

এ ব্যাপারে স্থানীয় মুন্না চৌধুরী বলেছেন, আমার বাবা দাদাদের জন্মেরও অনেক আগের এই গাছ। প্রাচীন এ গাছটির মূল্য কমপক্ষে ৮০ হাজার টাকা হবে বলে আমি মনে করি।

মোকামতলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজা চৌধুরী বলেন, গাছটির বয়স দেড় দু’শ বছর হবে এবং বিশালাকার এই পাকুর গাছের মূল্য হবে প্রায় ১ লক্ষ টাকা। কিন্তু কি কারনে মাত্র সাড়ে নয় হাজার টাকায় গাছ বিক্রি করা হলো তা আমাদের মনে প্রশ্নের সৃষ্টি করেছে।

বিষয়টি নিয়ে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর কবির দৈনিক মানবজমিনকে জানান, গত বৃহস্পতিবার টেন্ডারের মাধমে সর্বোচ্চ দর দাতার কাছে গাছটি বিক্রয় করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে আরও বিস্তারিত জানতে উপজেলা প্রশাসনের অফিস সহকারী (নাজির) মাসুদ রানার সাথে কথা বললে তিনি জানান, টেন্ডারে অংশ নেয়া ছয় জনের মধ্য সর্বোচ্চ দাম বলায় গাছটি ওই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতির ছেলে আহসান হাবিবের কাছে সাড়ে নয় হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়েছে। এবং তিনদিনের সময় বেধে দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৬ মে ঘূর্ণিঝড়ে গাছটি এক অসহায় পরিবারের বসত বাড়ির ওপর আঁচড়ে পড়লে ৫ টি ঘর চূর্ণ বিচূর্ণ হয়ে যায়। ঘটনার বেশ কয়েকদিন অতিবাহিত হওয়ার পর “ঘরের ওপর পড়ে আছে সরকারি গাছ,সন্তানদের নিয়ে স্কুলের বারান্দায় সাদেক” শিরোনামে দৈনিক মানবজমিনে সংবাদ প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পর গাছ ক্রয় কমিটির মিটিং ডেকে রেজুলেশন করে ডিসি অফিস থেকে নিজ তদারকিতে একদিনের মধ্যেই অনুমতি নিয়ে টেন্ডার সম্পন্ন করেন ইউএনও।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ