• বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৫১ অপরাহ্ন
  • English Version
Notice :
***শর্ত সাপেক্ষে সাংবাদিক নিয়োগ দিচ্ছে সংবাদ২৪**আগ্রহীরা সিভি পাঠান এই ইমেইলেঃinfo@shangbad24.com

ভ্যাকসিনে সমন্বয়কারী প্রতিষ্ঠানকে অগ্রাধিকার দেবে বাংলাদেশ

সংবাদ২৪ ডেস্ক
আপডেট বৃহস্পতিবার, ৮ অক্টোবর, ২০২০

দেশে ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করে যেসব বিদেশি প্রতিষ্ঠান ভ্যাকসিন উৎপাদন করবে তাদের অগ্রাধিকার দেবে বাংলাদেশ।

 

 

বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বৈঠকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণের দিনকে ঐতিহাতিক দিবস হিসেবে পালনেরও সিদ্ধান্ত হয়।

এছাড়া মন্ত্রিসভায় ‘আয়োডিনযুক্ত লবণ আইন ২০২০’ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে ভার্চুয়ালি এ বৈঠক হয়। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকেই সভায় সভাপতিত্ব করেন।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের জন্য অনেক দেশ ও সংস্থা কাজ করছে। আমরা তাদের সবার সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।

‘তবে ভ্যাকসিন উৎপাদনে দেশীয় প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সমন্বয়কারীদের অগ্রাধিকারে রাখছে সরকার। মন্ত্রিপরিষদ আশা করছে, বাংলাদেশ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করোনার টিকা পাবে।’

তিনি বলেন, ‘কেউ কেউ দাবি করেন বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন পাওয়ার সুযোগ আমরা হাতছাড়া করেছি। এটা সঠিক নয়। বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন পাওয়ায় সুযোগ আছে বলে মনে হয় না।

‘আবার আগামী বছরের এপ্রিলের আগে ভ্যাকসিন আসবে বলেও মনে হচ্ছে না। তবে যখনই আসুক টিকা সংগ্রহ করার জন্য ৬০০ কোটি টাকার একটি তহবিলও গঠন করা হয়েছে। অসমর্থ ও দরিদ্র নাগরিকদের এসব টিকা বিনা টাকায় দেওয়া হতে পারে।‘

বঙ্গবন্ধুর দেয়া ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ভাষণ দেশের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার মূল প্রেরণা। ভাষণকে কেন্দ্র করে স্বাধীনতার চূড়ান্ত মঞ্চ গড়ে ওঠে বলে সরকার ৭ মার্চকে ঐতিহাসিক দিবস ঘোষণা করেছে।

আনোয়ারুল ইসলাম জানান, দিবসটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবস হিসেবে উদযাপন সংক্রান্ত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জারিকৃত পরিপত্রের ‘ক’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এর মাধ্যমে সব মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দফতর, সংস্থা দিবসটি তাদের নিজস্ব কর্মসূচির মাধ্যমে উদযাপন ও বাস্তবায়ন করবে। তবে এ দিন সরকারি ছুটি থাকবে না।

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় এ প্রস্তাব মন্ত্রিপরিষদে তুলেছিল। দিবসটি পালনের যৌক্তিকতা হচ্ছে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে সঠিকভাবে উপস্থাপন ও তাৎপর্য তুলে ধরা।‘

বুধবার আয়োডিনযুক্ত লবণ আইন ২০২০ খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, এ আইনে নিবন্ধন ছাড়া লবণ আমদানি, গুদামজাত ও প্রক্রিয়াজাত করা যাবে না। কেউ করলে এবং এর গুণগত মান নিশ্চিত না হলে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ডসহ অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘এ আইনের মধ্যে ১৩টি অধ্যায় এবং ৫১টি ধারা আছে। এর মূল বিষয়গুলো হচ্ছে একটি জাতীয় লবণ কমিটি হবে এবং তারা লবণের উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, পরিশোধন, আয়োডিনযুক্তকরণ, মজুদ, বিক্রয়, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, লবণ কারখানার জন্য আয়োডিন সরবরাহ, আমদানি নিয়ন্ত্রণ এবং ব্যবস্থাপনা নীতির বিষয়ে সুপারিশ প্রণয়ন করবে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ